বিশ্বের আবেদনময়ী ১০ নারী রাজনীতিবিদ (ছবিসহ)

প্রকাশ : ২৯ নভেম্বর ২০১৬, ১৬:৫৭ | আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০১৬, ১৭:০৮

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

সময়ের সঙ্গে অনেক কিছুই পাল্টে গেছে। পুরুষের সঙ্গে নারীরাও আজ সমান তালে কাজ করে যাচ্ছেন। জ্ঞানে-বিজ্ঞানে, রাজনীতিতে সমান ভূমিকা রাখছেন তারা।
 
বিশ্বের অনেক নারী রাজনীতিবিদ রয়েছেন, যারা নিজেদের মেধার সাক্ষর রেখে চলেছেন। তারা শুধু রাজনীতিবিদ হিসেবেই প্রতিষ্ঠিত নয়, শরীরে সৌন্দর্যেও মুগ্ধ করেছেন মানুষকে।
 
বিশ্বের এমন আবেদনময়ী ১০ নারী রাজনীতিবিদকে নিয়ে সাজানো হয়েছে আজকের আয়োজন। 
 

বেলিনদা স্ট্রনাচ (কানাডা) :

বেলিনদা স্ট্রনাচ কানাডিয়ান পার্লামেন্টের সদস্য। ২০০৪-২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি কানাডিয়ান হাউস অব কমনসের সদস্য ছিলেন। সুন্দরী এই রাজনীতিবিদ মানব সম্পদ ও দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।  
 

আন্না মারিয়া (এস্তোনিয়া) :

আন্না মারিয়া এস্তোনিয়ার একজন প্রাক্তন রাজনীতিবিদ। ৫৯ হাজার ৪৩৮ ইউরো আত্মসাতের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন। ২০০৯ সালে প্লেবয় ম্যাগাজিনেও পোজ দিয়েছিলেন তিনি।    
 

ওরলি লেভি (ইসরায়েল) :

ওরলি লেভি ইসরায়েলের একজন নারী রাজনীতিবিদ। তিনি ইসরায়েলের নেসেটের সদস্য। রাজনীতিতে যোগ দেয়ার আগে তিনি মডেল ও টেলিভিশন উপস্থাপক হিসেবে কাজ করতেন।
 

সেথরিডা (লেবানন) :

সেথরিডা লেবাননের প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ। শরীরি সৌন্দর্যের জন্যও রয়েছে তার জনপ্রিয়তা। তিনি রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হন লেবানিজ আমেরিকা ইউনিভার্সিটিতে থাকা অবস্থায়।
 

আলিনা কাবাইভা (রাশিয়া) :

আলিনা কাবাইভা একজন রাজনীতিবিদ। ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টি থেকে ডুমা রাজ্যের ডেপুটি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাশিয়ার এই সুন্দরী শুধু রাজনীতি করেন না, তিনি জিমন্যাস্ট হিসেবে দুইবার মেডেল জয় করেছেন।
 

জুলিয়া বঙ্ক (জার্মানি) :

জুলিয়া বঙ্ক জার্মানির বাম রাজনীতি করেন। তিনি জার্মান সংসদের সর্বকনিষ্ট সদস্য। মাত্র ১৮ বছর বয়সে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
 

অ্যাঞ্জেলা জারেকু (গ্রীস) :

গ্রিসের রাজনৈতিক দল পিএএসওকে-এর উপ সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন অ্যাঞ্জেলা। ইতালির রোমে স্থাপত্যবিদ্যা বিষয়ে পড়াশোনা করেন তিনি। পড়াশোনা শেষ করে দেশে ফিরে রাজনীতিতে যোগ দেন।
 

ইভা কাইলি (গ্রিস) :

ইভা কাইলি হেলেনিকের সংসদ সদস্য। তিনি ব্ল্যাক সি ইকোনোমিক কো-অপারেশনের (বিএসইসি) সদস্য। এই সুন্দরী রাজনীতিবিদ এক সময় সংবাদ পাঠিকা হিসেবে কাজ করতেন।
 

মারিয়া কারফাগনা (ইতালি) :

মারিয়াকে ‘বিশ্বের সুন্দরী মন্ত্রী’ নামও দেয়া হয়েছে। ২০০৪ সালে তিনি রাজনীতিতে যোগ দেন। তার আগে তিনি ইতালিয়ান টেলিভিশন অভিনেত্রী ও মডেল হিসেবে পরিচিত ছিলেন।   
 

লুসিয়ানা লিওন (পেরু) :

লুসিয়া লিওন পেরুর একজন নারী রাজনীতিবিদ। তিনি ১৪ বছর বয়সে আপরিস্টা পার্টির যুব শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৬ সালে পেরুর সর্বকনিষ্ট সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বচিত হন। সুন্দরী রাজনীতিবিদ হিসেবেও রয়েছে তার আলাদা ইমেজ।