উপবৃত্তির অনিয়ম ঠেকালে বিদেশে প্রশিক্ষণের সুপারিশ

প্রকাশ : ০২ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

কোনো জেলার সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সুষ্ঠুভাবে উপবৃত্তির টাকা বিতরণ হলে সেই জেলার শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ দিতে সুপারিশ করেছে অনিয়ম তদন্তে গঠিত একটি কমিটি। চারটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপবৃত্তি টাকা বিতরণে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ার পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির এই সুপারিশ এল।

উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে অনিয়ম হলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তাদের দায়ী করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া, মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের নিয়ে ভিজিলেন্স টিম গঠন করে উপবৃত্তির টাকা বিতরণসহ মোট চার দফা সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ২০ জেলার ২৫ উপজেলায় উপবৃত্তির টাকা বিতরণের অনিয়ম তদন্তে গত ৩ অগাস্ট মন্ত্রণালয়ের ১১ কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তদন্ত শেষ করে মাত্র চারটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককের অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ার কথা প্রতিবেদনে বলেছেন কর্মকর্তারা। ১১ কর্মকর্তার প্রতিবেদন পাওয়ার পর তা পর্যালোচনা ও অনুমোদন শেষে দোষী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রতিবেদন তৈরির সমন্বয়ক, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব নেছার আহমদ। তবে ২৫ উপজেলায় মোট কতগুলো বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ ছিল তা জানাননি কমিটির সদস্যরা।

মাঠ পর্যায়ের কয়েকজন শিক্ষা কর্মকর্তা বলেছেন, কয়েকশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে অনিয়ম হলেও তদন্ত প্রতিবেদনে তার প্রতিফলন হয়নি। একজন শিক্ষা কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘অনেক বিদ্যালয়ে উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিও জড়িত। অনেক সভাপতির রাজনৈতিক পদ-পদবি থাকায় তাদের বিরুদ্ধে কিছু বলাও মুশকিল।’ উপবৃত্তির অর্থ বিতরণে অনিয়ম তদন্তের দায়িত্ব জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের দিলে প্রকৃত চিত্র পাওয়া যাবে বলে মনে করেন ওই শিক্ষা কর্মকর্তা।

"