সাত খুন মামলার রায় ১৬ জানুয়ারি

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
ADVERTISEMENT

নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুনের ৩৫ আসামির কার কী বিচার হবেÑসেই রায় জানা যাবে আগামী ১৬ জানুয়ারি। ওই ঘটনায় দায়ের করা দুই মামলায় বাদী ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে গতকাল বুধবার নারায়ণগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেন রায়ের এদিন ধার্য করেন।

যুক্তিতর্কে রাষ্ট্রপক্ষ এ মামলার আসামিদের রশিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার আবেদন করেছে। অন?্যদিকে আসামিদের নির্দোষ দাবি করে বেকসুর খালাস দেওয়ার আরজি জানিয়েছেন তাদের পক্ষের আইনজীবীরা।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের সামনে থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ তার পাঁচ সহযোগীকে অপহরণ করা হয়।

একই সময় একই স্থান থেকে অপর একটি গাড়িতে থাকা নারায়ণগঞ্জ আদালতের প্রবীণ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার গাড়িচালককেও অপহরণ করা হয়।

ঘটনার তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীর বন্দর উপজেলা শান্তির চর এলাকার তীর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ হত্যাকান্ডে নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি ও চন্দন সরকারের মেয়ের জামাতা বিজয় কুমার পাল বাদী হয়ে একই থানায় অন?্য মামলাটি করেন। প্রায় এক বছর তদন্ত শেষে প্রধান আসামি নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ৩৫ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ মন্ডল।

এ ঘটনায় র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ১৭ সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের তৎকালীন ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নূর হোসেনের পাঁচ সহযোগীসহ মোট ২২ জনকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার ১৭ মাস পর মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে ভারত থেকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। তিনিসহ বর্তমানে এ মামলায় ২৩ আসামি কারাগারে রয়েছেন। পলাতক ১২ জনের মধ?্যে আটজনই র‌্যাব সদস্য।

পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন জানান, আসামিদের মধে?্য ২১ জন ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। রাষ্ট্রপক্ষে মোট ১৬৪ জনের সাক্ষ?্য শুনেছেন আদালত; যাদের মধে?্য ৬০ জন প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে জবানবন্দি দিয়েছেন।

"