বেহাল জাবির ব্যায়ামাগার

প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

জাবি প্রতিনিধি
ADVERTISEMENT

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) একমাত্র জিমনেসিয়ামটি দীর্ঘদিনধরে বেহাল দশায় রয়েছে। প্রয়োজনীয় উপকরণ নেই। ছাদ ফেটে যাওয়ায় বর্ষার মৌসুমে ফাটল বেয়ে পানি পড়ে। ছোট একটি কক্ষে কয়েকটি পুরনো উপকরণ দিয়ে চলছে জিমনেসিয়ামটি।

দেশের একমাত্র আবসিক বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে বেশিরভাগ শিক্ষার্থী থাকেন আবাসিক হলগুলোতে। স্বাভাবিকভাবেই এসব শিক্ষার্থীদের একটি বিশাল অংশ শরীর চর্চার জন্য জিমনেসিয়ামে যান। কিন্তু প্রয়োজনীয় উপকরণ না থাকায় এবং ভবনটি ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় এসব শিক্ষার্থীদের একটা অংশ মোটা অঙ্কের টাকা খরচ করে বাইরের জিমনেসিয়ামগুলোতে ভর্তি হচ্ছেন। আর যাদের সে সামর্থ্য নেই তারা ঝুঁকি নিয়ে খুড়িয়ে চলা জিমনেসিয়াম দিয়ে চাহিদা মেটাচ্ছেন।

ইতিহাস বিভাগ ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী নিয়াজ মোরশেদ অনিক বলেন, ‘জিমনেশিয়ামে তেমন কোন উপকরণই নেই। তাছাড়া আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় সম সংখ্যক শিক্ষার্থী মেয়ে কিন্তু জিমনেশিয়ামে তাদের জন্যও আলাদা কোন ব্যবস্থা নেয়।’

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে যেসব উপকরণ দিয়ে জিমনেসিয়ামের কার্যক্রম চলছে তার অধিকাংশই গত কয়েক বছরে

বিভাগ নিজস্ব উদ্যোগে বিভিন্ন উৎস থেকে অনুদান হিসেবে সংগ্রহ করেছে। যা শিক্ষার্থীরদের সংখ্যার বিবেচনায় যথেষ্ট নয়।

জিমনেসিয়াম কর্মকর্তারা বলেন, উপকরনের অভাবে দুটি ফিটনেস ট্রেইনিং সেন্টারের মধ্যে একটি বন্ধ। আরেকটি প্রতিষ্ঠাকালীন কিছু উপকরণ দিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে। পেশি শক্তি বাড়ানোর জন্য সাইক্লিং মেশিন, ট্রেডমিল, ডাম্বেল, মাল্টিজিম, বারবেল ওয়েট যন্ত্রসহ বিভিন্ন আধুনিক যন্ত্রপাতি না থাকায় শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজন মেটাতে পারছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শারীরিক শিক্ষা বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এখানে যেসব যন্ত্রপাতি আছে তা খেলোয়ারদের জন্য পর্যাপ্ত তবে বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষার্থীদের চাহিদা পূরণে যথেষ্ট নয়।’

 

 

"