১৫ দিন লড়ে মৃত্যুর কাছে হার আহত আনসার সদস্যের

প্রকাশ : ০২ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি
ADVERTISEMENT

টানা ১৫ দিন সংজ্ঞাহীন অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে অবশেষে মারা গেছেন বেনাপোল স্থলবন্দরের আনসার সদস্য ফিরোজ হাসান (৩২)। গত বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। বেনাপোল স্থলবন্দরের আমদানিকৃত পণ্য চোর সিন্ডিকেটের সদস্যদের হাতে গত ১৫ নভেম্বর রাতে গুরুতর আহত হন তিনি। হাসান ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার বকশিপুর গ্রামের ইব্রাহিম হোসেনের ছেলে।

হাসানে মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে শার্শা উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা শ্যামপ্রসাদ অধিকারী জানান, ১৫ নভেম্বর রাতে তাকে যশোর থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে তিনি আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন। বুধবার বিকেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানা যায়, গত ২৬ অক্টোবর বন্দর থেকে আমদানি পণ্য চুরির সময় খোকন ও তৌহিদুর নামের চোর সিন্ডিকেটের দুই সদস্যকে আট কেজি তামা জাতীয় পণ্যসহ আটক করেন কর্তব্যরত আনসার সদস্য ফিরোজ হাসান। পরে তাদের পুলিশে সোপর্দ করা হয়। কিছুদিন পরই আসামিরা জেল থেকে জামিনে বেরিয়ে চুরি সিন্ডিকেটের হোতা রিপনসহ আরো ৮-১০ জনসহ গত ১৫ নভেম্বর রাতে হাসানের ওপর হামলা চালায়। পরে অন্য আনসার সদস্য ও স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে ওই রাতেই তাকে ঢামেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ঘটনায় গত ১৬ নভেম্বর রাতে আনসার ব্যাটালিয়নের এপিসি আব্দুর রশিদ বাদী হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখসহ ১০ জনকে আসামি করে বেনাপোল পোর্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তবে পুলিশ কোনো আসামিকে আটক করতে পারেনি।

এদিকে এ মামলার অন্যতম আসামি রিপন গত বুধবার দিবাগত রাতে দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের গোলাগুলিতে নিহত হয়েছেন বলে জানান পোর্ট থানার ওসি অপূর্ব হাসান।

বেনাপোল পোর্ট থানার ডিউটি অফিসার সহকারী উপ-পরিদর্শক মতিউর রহমান জানান, ‘আনসার সদস্য হাসানের ওপর হামলার ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিরা এলাকা ছাড়ায় তাদের আটক করা যাচ্ছে না। তবে গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। হাসানের মৃত্যুর খবর আমরা এখনো পাইনি।’

"