ভারতের অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক

খুলনার পাটজাত দ্রব্য রপ্তানিতে বিরূপ প্রভাবের আশংকা

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

মো. শাহ আলম, খুলনা
ADVERTISEMENT

প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারত পাটজাতদ্রব্যের ওপর অ্যান্টি ডাম্পিং কর আরোপ করলে খুলনার সরকারি ৯টি পাটকলের উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি বছরে ৩০ শতাংশ কমে আসবে। ফলে বছরে ২ হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রা থেকে দেশ বঞ্চিত হবে।

দেশে পলিথিনের ব্যবহার নিষিদ্ধ হওয়ার পর দক্ষিণাঞ্চলের পাটকলগুলোতে পাটজাতদ্রব্য উৎপাদনে প্রতিযোগিতা শুরু হয়। খুলনায় বিজিএমসি নিয়ন্ত্রিত প্লাটিনাম, ক্রিসেন্ট, স্টার, খালিশপুর, দৌলতপুর, আলীম, ইস্টার্ণ, কার্পেটিং এবং জেজেআই মিলে প্রতি মাসে আনুমানিক ২৭ হাজার বেল পাটজাতদ্রব্য উৎপাদিত হচ্ছে। উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে রয়েছে সুতা, চট ও বস্তা। খুলনায় উৎপাদিত পাটজাতদ্রব্যের সবচেয়ে বড় বাজার সুদান, তুর্কি ও ভারত।

জুটমিলের সূত্রগুলো জানিয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে সংঘর্ষজনিত কারণে সিরিয়া, মিশর ও ইরাকে রপ্তানি হ্রাস পেয়েছে। তুর্কি ও চীনের বাজার সংকুচিত হয়ে এসেছে। ভরসা সুদান ও ভারত। সম্প্রতিক সময়ে ভারত সরকার অ্যান্টি ডাম্পিং কর আরোপ করার প্রস্তাবের ফলে খুলনার শিল্পাঞ্চলে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। ভারতের বায়াররা রপ্তানি খরচ বেশি পড়ায় নিরুৎসাহিত হয়ে পড়েছেন।

প্লাটিনাম জুবলি জুটমিলের জেনারেল ম্যানেজার এসএম মহাব্বত আলী এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ভারতের বায়ার আগ্রহ না দেখালে স্থানীয় পাটকলগুলোর উৎপাদনে ভাটা পড়বে। এ শুল্ক আরোপ করার ফলে বছরে ৩০ শতাংশ রপ্তানি কমবে। তিনি বলেন, এ মিলে উৎপাদিত পাটজাতদ্রব্য প্রতি মাসে আড়াই হাজার বেল সুদান ও তুর্কিতে রপ্তানি হচ্ছে।

স্টার জুটমিলের জিএম আবুল কালাম হাজারী বলেন, ভারতীয় বায়ারদের রপ্তানি ব্যয় বাড়বে। লাভ না হলে তারা সে দেশে আমদানিতে নিরুৎসাহিত হবে। পাটপণ্য অবিক্রি থাকলে মিলগুলোর লোকসান হতে পারে। তার দেওয়া তথ্য মতে, গেল মাসে ২ হাজার বেল পাট সুদানে রপ্তানি হয়েছে।

ক্রিসেন্ট জুটমিলের প্রোডাকশন ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, অতিরিক্ত কর আরোপের পর লোকসান এড়াতে বায়াররা আমদানিতে নিরুৎসাহিত হবে। এমনিতেই ভারতে মালামালের চাহিদা কমেছে। সুদানে প্রতি মাসে ২ হাজার বেল ফিনিশ গুডস রপ্তানি হচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম ঢাকায় অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক বিষয়ক এক সেমিনারে উল্লেখ করেন, পাট পণ্যের ওপর ভারত যদি শেষ পর্যন্ত অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে তাহলে সেটি হবে লজ্জাজনক। ভারত সরকারের ভেতরে কিছু লোক সেই দেশটিকে হেয় করার জন্যই এ ধরণের শুল্ক বসানোর সুপারিশ করেছে। ভারত এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসবে বলে তিনি আশা করেন।

বাংলাদেশ জুট এসোসিয়েশনের খুলনা শাখার সূত্র উল্লেখ করেন, চীন, পাকিস্তান, ভারত ও আইভরিকোস্টে কাঁচা পাট রপ্তানি হচ্ছে। তার দেওয়া তথ্য মতে, খুলনার দৌলতপুর থেকে সেপ্টেম্বর মাসে ১৯৫ কোটি টাকা মূল্যের ১ লাখ ৭৫ হাজার ৯৪৩ বেল এবং অক্টোবর মাসে ২৪৯ কোটি টাকা মূল্যের ২ লাখ ৩২ হাজার ৫৮৫ বেল কাঁচা পাট ভারতে রপ্তানি হয়।

"