মাতাব্বরের প্রতাপ!

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি
ADVERTISEMENT

শালিসের জরিমানা দিয়েও নওগাঁর আত্রাইয়ে একটি পরিবারকে প্রায় দুই মাস যাবত সামাজিক ভাবে এক ঘরে করে রেখেছে সমাজের মাতব্বরা। ফলে ওই পরিবারের সামাজিক জীবন যাপন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। নিজ বাড়িতে দীর্ঘদিন থেকে এককভাবে অবরুদ্ধ থাকায় মানসিক ভারসাম্য হারাতে বসেছেন গৃহবধু রেখা বানু।

এমনকি দুই মাস ধরে কোন সামাজিক অনুষ্ঠানে ওই পরিবারের সদস্যদের দাওয়াত দেওয়া হচ্ছে না। ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গেলে তাদের বাঁধা দেওয়া হয়। অমানবিক এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বিশা ইউনিয়নের বিশা ভাটোপাড়া গ্রামে। সরেজমিনে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মকবুল হোসেনের স্ত্রী রেখা বানু সম্প্রতি একই গ্রামের নন্দিপাড়ায় গড়ে ওঠা একটি মাজারে মান্নত দিতে যান। ওই মাজারের কথিত খাদেম আতিকুরের সাথে তার অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ তুলে গ্রাম্য সালিসে মকবুলের পরিবারের কাছে থেকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা দাবি করা হয়। ইতোমধ্যে রেখা বানু মাতব্বরদের দাবিকৃত ৩০ হাজার টাকা জনৈক কাশেম মাস্টারের ছেলে বাবুর নিকট জমা দেন। এরপরও সমাজের মাতব্বররা মকবুলের পরিবারকে গত কুরবানি ঈদের পর থেকে এক ঘরে করে রাখার ঘোষণা দেয়।

এ বিষয়ে রেখা বানুর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, আমার দুই ছেলে প্রবাসী। আমাদের ভালো খাওয়াপড়া সমাজের চক্ষুশুল হয়েছে। এ জন্যই ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলে আমাদেরকে একঘরে করে রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে রেখা বানুর স্বামী মকবুল হোসেন বলেন, তাদের অভিযোগের কোন সত্যতা নেই। অন্যায়ভাবে সমাজের মাতব্বররা আমাদের একঘরে করে রেখেছেন। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এ ব্যাপারে সমাজের মাতব্বর কাবের মাস্টার বলেন, মাজারের ছেলে আতিকুলের সাথে রেখার অবৈধ সম্পর্কের কারণে তাদেরকে দীর্ঘ দিন থেকে এক ঘরে করে রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে বিশা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান বলেন, এই পরিবারকে এক ঘরে করে রাখার বিষয়টি আমার জানা নেই। পরিবারটি যাতে সামাজিক ভাবে সবার সঙ্গে বসবাস করতে পারে বিষয়টি যেনে সেই পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে আত্রাই থানা ওসি বদরুদ্দোজা জানান, এ বিষয়ে আমাকে কেউ জানায়নি।

"