মিরপুরে ছক্কা-বৃষ্টি

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

খেলা প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

রংপুর রাইডার্সের বড় জুটি হলো সপ্তম উইকেটে এসে। তবে এই জুটিতে জিয়াউর রহমান-সোহাগ গাজীর লড়াইটা হয়েছে শুধু ব্যবধান কমানোর জন্যই। ৯ ওভারে ৪৬ রানে ৬ উইকেটে হারিয়ে রংপুর ম্যাচ থেকে ছিটকে গেছে তো আগেই। তবুও পরাজয়ের ব্যবধান যে ৪২ রান হয়েছে সেটি জিয়ার লড়াকু ইনিংসটার সুবাদেই।

জয়-পরাজয় বিপিএলের দর্শকদের ওপর খুব একটা প্রভাব ফেলে বলে মনে হয় না। তারা চান মারকাটারি ক্রিকেট। সেদিক দিয়ে কালকের দিনের প্রথম ম্যাচটা হলো পয়সা-উসুলের। ১৮ ছক্কা হলো এই ম্যাচে। সেই সঙ্গে ২৪টি চার। ৩১২ রানই এল বাউন্ডারি থেকে। রানের সিংহভাগই জোগান দিলেন লুইস ও জিয়া। তবে লুইসের ৩৪ বলে ৭৫ রানের ইনিংসটার যথাযথ জবাব হতে পারল না জিয়ার ৪৩ বলে ৬০। ম্যাচের ব্যবধানও তৈরি হলো এখান থেকেই।যদিও জিয়া লড়ে গেলেন সবটুকু দিয়ে। ইনিংসের শেষ বলে আবু জায়েদের বলে বোল্ড হওয়ার আগে খেলছেন ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা। টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ারের শুরুরর দিকে নাম কামিয়েছিলেন। যদিও বিপিএলে তো অবশ্যই, টি-টোয়েন্টিতে এটি জিয়ার প্রথম ফিফটি। গাজীর সঙ্গে জিয়ার সপ্তম উইকেট জুটিতে যোগ হয়েছে ৫৬ বলে ৮৭ রান। রংপুরের ইনিংসের হাইলাইটস বলতে এতটুকুই। দুর্দান্ত বোলিং করেছেন সাকিব আল হাসান ও জায়েদ। সাকিব ৪ ওভারে ১১ রানে পেয়েছেন ২টি আর জায়েদ ২০ রানে ৩ উইকেট। মেহেদী মারুফকে নিয়ে ওপেনিং জুটিতে ঢাকা ডায়নামাইটসকে দুর্দান্ত শুরু এনে দেন লুইস। ক্যারিবীয় ওপেনার ২১ বলে পূর্ণ করেন হাফ সেঞ্চুরি। গত বিপিএলে ঢাকার বিপক্ষেই চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সেঞ্চুরি করেছিলেন। কাল সৌম্য সরকারকে তুলে মারতে গিয়ে ক্যাচ হয়েছেন বদলি ফিল্ডার ইলিয়াস সানির হাতে। তিন চার আর আট ছয়ে ৩৪ বলে ৭৫ রানের ইনিংসটার সমাপ্তি এখানেই। এমন বিধ্বংসী ইনিংসের কারণে অবধারিতভাবেই ম্যাচ সেরা হয়েছেন লুইস।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ঢাকা ডায়নামাইটস : ২০ ওভার, ১৮৮/৭ (লুইস ৭৫, মারুফ ৪০, রুবেল ৩/২৫)।

রংপুর রাইডার্স: ২০ ওভার, ১৪৬/৮ (জিয়াউর ৬০, গাজী ৩৬, জায়েদ ৩/২০)।

ফল : ঢাকা ৪২ রানে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: এভিন লুইস (ঢাকা ডায়নামাইটস)।

"