উল্টোরথে রংপুর রাইডার্স

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

খেলা প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

মাঝপথের বিপিএলে দুর্দান্ত গতিতে ছুটছিল রংপুর রাইডার্স। চট্টগ্রাম পর্বের আগুন পারফরম্যান্সের পুরস্কার স্বরূপ পয়েন্ট তালিকার শীর্ষেও উঠেছিলেন নাঈম-আফ্রিদিরা। সেই দলটাই হঠাৎ পথভ্রষ্ট। কোনোভাবেই পরাজয়ের বৃত্ত ভেঙে বেরিয়ে আসতে পারছে না তারা। কাল টানা চতুর্থবারের মতো হেরে বসেছে রংপুর। ফলাফলÑপেন্ডুলামের মতো দুলছে তাদের টিকে থাকার ভাগ্য!

মাঠের বাইরের নাজুক অবস্থার প্রভাব পড়ল রাইডার্সের ড্রেসিংরুমে। যেখানে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন জুপিটার ঘোষ। ক্ষোভটা বেশিদিন চেপে রাখতে পারেননি। রংপুরের বিপক্ষে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগই করে বসেন বাংলাদেশের এই ক্রিকেটার। জুপিটার দাবি করেছেনÑদলের ম্যানেজার সানোয়ার হোসেন তাকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। রাজি না হওয়াতেই তার বিপক্ষে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ তুলেছে ম্যানেজম্যান্ট।

ম্যাচ কেলেঙ্কারির বিষয়টি বিসিবি মারফত আকসু পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। খেলোয়াড় জুপিটার এবং ম্যানেজার সানোয়ার দুজনকেই ডাগ-আউট এবং সাজঘরে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থেই দুজনকে দল থেকে বাইরে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। সানোয়ারের পরিবর্তে ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দলেরই সহকারী কোচ মোহাম্মদ তপুকে। কোচিংকর্তা এবং ম্যানেজার একসঙ্গে দুটো দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কাল যথেষ্ট হিমশিম খেয়েছেন তিনি!

এর সবচেয়ে নমুনা ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে রংপুর রাইডার্সের ম্যানেজম্যান্ট দলের প্রতিনিধি হিসেবে এমন একজনকে পাঠিয়েছে যিনি ১০ ম্যাচের একটিতেও একাদশে ছিলেন না! দ্বাদশ খেলোয়াড়কে ম্যাচের পর প্রচারমাধ্যমের সামনে হাজির করার ঘটনা ক্রিকেট বিশ্বের কোথাও আছে কি না সন্দেহ! স্বাভাবিক নিয়ম অনুসারে দলের সেরা পারফর্মার, অধিনায়ক, কোচ কিংবা একাদশের কেউ ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন। তাই গণমাধ্যমের ধারণা ছিল দলের সবচেয়ে উজ্জ্বল পারফর্মার জিয়াউর রহমানই দলের প্রতিনিধি হয়ে আসবেন। ব্যাট হাতে ৪৩ বলে ৬০ রানের বিধ্বংসী ইনিংস এবং বল হাতে ২ উইকেট শিকারের পরও তার সংবাদ সম্মেলনে না আসাটা ছিল বিস্ময়কর। এর চেয়েও আশ্চর্যজনক হচ্ছেÑসংবাদ সম্মেলনে দ্বাদশ খেলোয়াড় মোহাম্মদ ইলিয়াসের পাশে ছিলেন না রংপুর রাইডার্সের মিডিয়া ম্যানেজার এম এ বাকী। তার পরিবর্তে এলেন ‘অপরিচিত’ এক ব্যক্তি! এসব অনিয়ম এবং সার্বিক বিষয় প্রসঙ্গে জানতে চাইলে যোগাযোগের বৃথা চেষ্টা-ই করা হয় বাকীর সঙ্গে। রংপুর রাইডার্স মিডিয়া ম্যানেজারকে এদিন মুঠোফোনে পাওয়া-ই গেল না!

কাল রংপুর শিবিরে সবচেয়ে বড় ধাক্কা হয়ে এলো দুই স্পিনার আরাফাত সানি ও সোহাগ গাজীর বোলিং অ্যাকশনের দিকে তীর ছোড়ায়। সবমিলিয়ে রীতিমতো টালমাটাল নতুন মালিকানাধীন পুরনো ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। রংপুর কী পারবে গা ঝাড়া দিয়ে উঠতে? সব সংকট পেরিয়ে টুর্নামেন্টে শিরোপাস্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে? উত্তরটা দূরে নয়।

"