‘যতটা সম্ভব ছক্কা মারতে চাই’

বিপিএলে এখন চলছে টিকে থাকার পর্ব। আসরের রোমাঞ্চ তুঙ্গে উঠলেও একটা শূন্যতা ঠিকই আছে। সেটা পূরণ করতে শুক্রবার ঢাকায় এসেছেন ক্রিস গেইল। কাল মিরপুর একাডেমি মাঠে চিটাগং ভাইকিংসের জার্সিতে অনুশীলনও করলেন। এর ফাঁকেই ক্যারিবীয় বিধ্বংসী ওপেনার মুখোমুখি হলেন প্রচারমাধ্যমের। মাঠে প্রত্যাবর্তন, আসরে লক্ষ্য, উইকেট, রেকর্ড, ব্যক্তিজীবন তথা সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন টি-টোয়েন্টির রাজা। গেইলের বলা কথাগুলোর চৌম্বক অংশ সাক্ষাৎকার আকারে প্রতিদিনের সংবাদের পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো :

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

বাংলাদেশ এবং বিপিএলে প্রত্যাবর্তন

ফিরতে পেরে ভালো লাগছে। টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছে বেশ কয়েক দিন হবে। তবে শুরু থেকে খেলতে পারলে ভালো লাগত। ব্যক্তিগত ঝামেলার কারণে আসতে পারিনি। এখানে আসার লক্ষ্য সব সময়ই ছিল। চিটাগং ভাইকিংসের জার্সিতে মাঠে নামতে মুখিয়ে আছি। আমাদের দল পয়েন্ট তালিকায় চার নম্বরে আছে। আসরের প্রথম দিকে কিছু ম্যাচ হারার পর দল ছন্দে ফিরেছে। এমন একটা দলে যোগ দেওয়াটা সব সময়ই আনন্দের। আশা স্বরূপে ফিরতে পারব, জয় দিয়ে শুরু করতে পারব।

বিপিএলের ম্যাচগুলো দেখেছেন?

হ্যাঁ, জ্যামাইকায় বসে কয়েকটি ম্যাচ দেখেছি। চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে খেলতে হবে। তাই ইন্টারনেটে দলের স্কোরের ওপরে নজর রেখেছি। প্রতিপক্ষের ব্যাপারে ধারণা নিতে অন্য দলগুলোর কয়েকটি ম্যাচও দেখেছি।

উদ্বোধনী জুটি

এটাই আমার প্রথম ম্যাচ। মাত্রই নেট করে আসলাম। ব্যাটিং অনুশীলন ভালোই হয়েছে। তামিমের সঙ্গে ইনিংস শুরু করতে যাচ্ছি। এটা দারুণ হবে। তিনিও এখন ফর্মে আছেন। তামিম এই কন্ডিশনে পারদর্শী এবং অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। তিনি খেলার মধ্যে আছেন, জানেন কীভাবে খেলতে হবে। দ্রুত ধারণা নিতে আমি তাকে অনুসরণ করতে পারি। আমরা চেষ্টা করব যতটা সম্ভব আক্রমণাত্মক থাকতে এবং প্রত্যাশিত শুরু করতে।

উইকেট নিয়ে ভাবনা

কাল রাতে (বৃহস্পতিবার) খেলা দেখে মনে হলো উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য একটু কঠিন। আশা করি শুরুর ম্যাচের উইকেট ভালো হবে। তবে এ নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন নই। উইকেট যেমন-ই হোক আমি শুধু নিজের খেলাটাই খেলতে চাই।

বিপিএলে নিজের রেকর্ড, স্মৃতি

কয়টি সেঞ্চুরি করেছি? দুটি না তিনটি? তিনটি হবে! সত্যি বলতে আমি গুলিয়ে ফেলেছি। তবে পরিসংখ্যান নিয়ে আমি ভাবছি না। সব সময়ই লক্ষ্য থাকে মানুষকে যতটা সম্ভব বিনোদন দেওয়া। সিপিএলের প্রায় ৪-৫ মাস হয়ে গেছে, আসরটা খেলতে পারিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলেছেন আমাকে মাঠে দেখতে চান তারা। টিভিতে চোখ রাখার সুযোগটা কালই (আজ) পাচ্ছেন তারা। গেইল ফিরেছেন এটা শুধু এখানে নয়, বাইরেও!

১০ হাজার রানের মাইলফলক কি বিপিএলেই হবে?

৩০০ রান দরকার? আপনার উচিত ছিল আমাকে আগেই বলা। তাহলে শুরু থেকেই খেলতাম! সত্যি বলতে ১০ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করাটা দারণ ব্যাপার হবে। আমিই হতে যাচ্ছি প্রথম ব্যাটসম্যান। তবে গুরুত্বপূর্ণ

হচ্ছে

আগামীকালের (আজ) শুরুটা। সম্ভাব্যটুকু মানিয়ে

নেওয়াটা

গুরুত্বপূর্ণ। কারণ দলকে প্লে-অফে কোয়ালিফাই করানোটাই আমার আসল লক্ষ্য।

১০ ইনিংসে ৫০ ছক্কা

১০ ইনিংসে ৫০

ছক্কা? এবার ৪ ইনিংসে ৫৫টি মারতে পারি! হা হা হা... আসলে আমি ছক্কার জন্যই বিখ্যাত। লোকে আমাকে চেনে ‘সিক্স মেশিন’ হিসেবে। এটাই আমি সবচেয়ে ভালো পারি। চেষ্টা করি যতটা সম্ভব বিনোদন দিতে। তবে প্রথম ম্যাচ বিধায় কিছুটা স্নœায়ুচাপ থাকতে পারে। জীবন এভাবেই চলে। আমি উপভোগ করতে চাই। কারণ আমি জানি দর্শকও রোমাঞ্চিত। দর্শকের অনুপ্রেরণাই আমার জ্বালানি হিসেবে কাজ করে। মানুষ যখন আমার কাছে ছক্কা চায়, চিৎকার করে, তখন ভালো করার জন্য ওটা আমার সহায়ক হয়।

পার্টি নাকি ছক্কা? কোনটা বেশি উপভোগ করেন?

ছক্কা। কারণ ছয় মারলে লাখ লাখ মানুষকে আনন্দ দেওয়া যায়। মাঠে নেমে যতটা সম্ভব ছক্কা মারতে চাই। এটা ঠিক কিছুটা বয়স হয়েছে। ভ্রমণক্লান্তি আছে। একদিন অনুশীলন অনুশীলন করে মাঠে নামা কঠিন। এটার সঙ্গে মানিয়ে নিতে চাই। তবে পার্টি করতেও ভালো লাগে।

মাঝ থেকে শুরু করা...

টিভি ও ইন্টারনেটে চোখ রাখার কথা আগেই বলেছি। দলের সঙ্গে না থাকা মানেই দূরত্ব নয়। সব সময়ই ভাইকিংসকে অনুসরণ করেছি। ছিলাম। আমরা প্রথম ম্যাাচ জিতেছি। পরে তিন-চারটা হেরেছি। এরপর আবার ঘুড়ে দাঁড়িয়েছি। নতুন দলে যোগ দেওয়াটা আমার কাছে পুরনো। এমন পরিস্থিতিতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। নতুন সতীর্থদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করাও দারুণ। এটা কেবল আমি অভিজ্ঞ এ জন্য নয়, ওদের কাছেও আমার কিছু শেখার থাকতে পারে। চেষ্টা করব সাজঘরে ইতিবাচক থাকতে, ছেলেদের বিশ্বাস বাড়াতে এবং মাঠে নেমে মূল কাজটা করতে।

 

 

"