প্রশাসন ক্যাডারে কোটারও বেশি পদোন্নতি

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের নির্ধারিত কোটার অতিরিক্ত সংখ্যককে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার, যা নিয়ে ক্ষুব্ধ অন্য ক্যাডারের কর্মকর্তারা। গতকাল রোববার ২০৫ জন জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিবকে পদোন্নতি দিয়ে সরকারের উপসচিব করা হয়েছে। এদের মধ্যে অন্য ২৬ ক্যাডার থেকে পদোন্নতি পেয়েছেন মাত্র ৪৮ জন। ‘সরকারের উপসচিব, যুগ্ম-সচিব, অতিরিক্ত সচিব ও সচিব পদে পদোন্নতি বিধিমালা-২০০২’ অনুযায়ী, উপসচিব পদে পদোন্নতিতে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের জন্য ৭৫ শতাংশ এবং অন্য ২৬ ক্যাডারের কর্মকর্তাদের জন্য ২৫ শতাংশ পদ নির্দিষ্ট করা আছে। কিন্তু উপসচিব পদে পদোন্নতির তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের নির্ধারিত ৭৫ শতাংশ কোটার সীমা পার করে ৭৬ দশমিক ৫৯ শতাংশ পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। প্রশাসন ক্যাডার বাদে অন্য ২৬ ক্যাডারের কর্মকর্তারা ২৩ দশমিক ৪১ শতাংশ পদে পদোন্নতি পেয়েছেন।

পদোন্নতিতে নির্ধারিত কোটা রক্ষা না করায় বেশ কয়েকটি ক্যাডারের কর্মকর্তারা ক্ষোভ জানালেও কেউ নাম-পরিচয় প্রকাশে রাজি হননি। প্রশাসন ক্যাডারের বাইরে রোববার শিক্ষা ক্যাডার থেকে ১৫ জন এবং কৃষি ক্যাডার থেকে ছয়জনকে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। তথ্য ক্যাডার থেকে পদোন্নতি পেয়েছেন একজন। তথ্য ক্যাডারের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘পদোন্নতি কীভাবে দিল, কেন শিক্ষা ক্যাডার থেকে ১৫ জনকে দেওয়া হল- সেসব বিষয়ে কারও সঙ্গেই কথা বলার উপায় নেই। যাদের সঙ্গে কথা বলতে যাব তাদের দখলেই তো সব।’

পদোন্নতিতে এগিয়ে ডিসিরা: উপসচিব থেকে যুগ্ম-সচিব পদে পদোন্নতি পাওয়া ১৮৬ জন কর্মকর্তার মধ্যে ১১ জনই জেলা প্রশাসক (ডিসি)। নরসিংদীর ডিসি আবু হেনা মোর্শেদ জামান, সুনামগঞ্জের ডিসি শেখ রফিকুল ইসলাম, রাজশাহীর ডিসি কাজী আশরাফ উদ্দিন, টাঙ্গাইলের ডিসি মো. মাহবুব হোসেন, নোয়াখালীর ডিসি বদরে মুনীর ফেরদৌস, যশোরের ডিসি মো. হুমায়ুন কবীর, মানিকগঞ্জের ডিসি রাশিদা ফেরদৌস, মাগুরার ডিসি মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, সিলেটের ডিসি মো. জয়নাল আবেদীন, চট্টগ্রামের ডিসি মো. সামছুল আরেফিন এবং ঝালকাঠির ডিসি মো. মিজানুল হক চৌধুরী যুগ্ম-সচিব হয়েছেন।

এগিয়ে শীর্ষকর্তাদের পিএসরা: বরাবরের মতো এবারও মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং সচিবদের একান্ত সচিবদের (পিএস) মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পদোন্নতি পেয়েছেন। পদোন্নতি পাওয়ার তালিকার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তাদেরও প্রাধান্য রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক কে এম আলী আজম ও শেখ ইউসুফ হারুন অতিররিক্ত সচিব এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালকদের মধ্যে মো. খলিলুর রহমান, নীলিমা আক্তার ও নাসরীন আফরোজ যুগ্ম-সচিব হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর একান্ত সচিব মুহাম্মদ ইব্রাহীম, জনপ্রশাসনমন্ত্রীর একান্ত সচিব এ এফ এম হায়াতুল্লাহ, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর একান্ত সচিব মু. মোহসিন চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. জহুরুল ইসলাম রোহেল পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম-সচিব হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টার একান্ত সচিব অতুল সরকার, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব নেওয়াজ হোসেন চৌধুরী, মৎস?্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. শাহরিয়ার কাদের ছিদ্দিকী, ভূমি প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব প্রদীপ কুমার দাস পদোন্নতি পেয়েছেন।

রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিবের একান্ত সচিব মো. শওকত আলী, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিবের একান্ত সচিব মনির হোসেন চৌধুরী, গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিবের একান্ত সচিব মুহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন খান, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের একান্ত সচিব সৈয়দ আলী আহসান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিবের একান্ত সচিব মো. রায়হান আখতার, শিল্প সচিবের একান্ত সচিব মো. কামরুল হাসান, বাণিজ্য সচিবের একান্ত সচিব সৈয়দ মুহাম্মদ কাওছার হোসেনকেও পদোন্নতি দিয়েছে সরকার।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব রাজা মুহাম্মদ আব্দুল হাই, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব এস এম হুমায়ুন কবির সরকার, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব মো. রফিকুল ইসলাম, আরেকটি সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব সোনা মনি চাকমাও পদোন্নতি পেয়েছেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের একান্ত সচিব কবীর মাহমুদ, প্রধান তথ্য কমিশনারের একান্ত সচিব হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন, জাতীয় সংসদের হুইপের একান্ত সচিব মো. আসিফ আহসানকে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার।

"