সিটি-পৌরসভার ৬২৩৩ স্থানে হবে পশু কোরবানি

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৬, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

আসন্ন ঈদুল আজহায় পশু কোরবানির জন্য ঢাকাসহ সব সিটি করপোরেশন এবং পৌর এলাকাগুলোতে ছয় হাজার ২৩৩টি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আয়োজিত এক বৈঠক শেষে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন এ তথ্য জানান।

নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানির পশু জবাই ও বর্জ্য অপসারণ বিষয়ে সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার মেয়রদের নিয়ে সচিবালয়ে এ বৈঠক হয়। পরে এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে আমাদের সক্ষমতা বেড়ে যাচ্ছে, পশু কোরবানির হারও বেড়েছে। সারাদেশে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ পশু কোরবানি হয়। এই কোরবানি নিয়ন্ত্রিতভাবে করা না হলে আমরা পরিবেশগত ও স্বাস্থ্যগতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হাই। ধর্মীয় ব্যাপারে কাউকে বিধি-নিষেধ দেওয়াও সম্ভব না। যত্রতত্র রাস্তায় পশু জবাই করলে জনস্বাস্থ্যের ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা আছে। ধর্মীয় বিধিবিধান মানতে গেলে রাস্তায় আসা যাবে না- সেটাও আমরা বলতে পারি না। সেজন্য সরকার পশু জবাইয়ের স্থান নির্ধারণ করে দিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সেখানে কোরবানি করেন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা করবে।

সচিব আবদুল মালেক জানান, এবার ৮৩ হাজার ৭০০ গ্রামে গড়ে ২০টি করে পশু কোরবানি হলে ১৬ লাখের বেশি পশু কোরবানি হবে। এর বাইরে শহরাঞ্চল মিলিয়ে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ পশু কোরবানি হতে পারে। সরকার নির্ধারিত স্থানে পশু জবাই বাধ্যতামূলক নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাস্তার ওপর পশু জবাই না করে নির্দিষ্ট স্থানে এসে জবাই করতে আমরা সবাইকে অনুরোধ করছি। ১১টি সিটি করপোরেশনে দুই হাজার ৯৪৩টি নির্ধারিত স্থানে পশু জবাইয়ের জন্য চার হাজার ৮৮৫ জন ইমাম এবং ১২ হাজার ৬৩৮ জন কসাই থাকবেন। জেলার নির্ধারিত পশু জবাইয়ের স্থানেও ইমাম ও কসাই রাখা হবে।

বৈঠকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক, ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন, রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনসহ চারটি পৌরসভার মেয়র উপস্থিত ছিলেন।

"