ভুল বুঝতে পেরে তিন জঙ্গির আত্মসমর্পণ

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৬, ০০:০০

যশোর প্রতিনিধি
ADVERTISEMENT

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহ্রীরের তিন সদস্য নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। সংগঠনটির মোশরেফ ও সাবাব পদবির এই তিনজন সদস্য স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্য যশোর পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। এরা হলেন যশোর শহরতলির খোলাডাঙ্গা কদমতলা এলাকার মৃত শফিয়ার রহমানের ছেলে সাদ্দাম ইয়াসির সজল (৩২)। তিনি হিযবুত তাহ্রীরের মোশরেফ সদস্য। অপর দুজন সংগঠনের সাবাব সদস্য। তারা হলেন যশোর শহরতলির ধর্মতলা মোড় এলাকার আবদুস সালামের ছেলে রায়হান আহমেদ (২০) ও যশোর শহরতলির কদমতলা এলাকার একেএম শারাফত মিয়ার ছেলে মেহেদী হাসান পলাশ (২০)। জানা গেছে, অভিভাবকরাই তাদের থানায় নিয়ে আসেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিন জঙ্গি সদস্যের আত্মসমর্পণের ব্যাপারে বিস্তারিত তুলে ধরেন খুলনা বিভাগের ডিআইজি এসএম মনির-উজ-জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন যশোরের পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে খুলনা বিভাগের ডিআইজি এসএম মনির-উজ-জামান বলেন, ‘তিন জঙ্গি সদস্য ভুল পথে গেছে বুঝতে পেরেছে। তারা অনুতপ্ত হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চায়। এজন্য তারা পুলিশের সহায়তা চেয়েছে। আমরা তাদের আইনি সহায়তা দেব।’

যশোরের পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বলেন, ‘তারা যে ভুল বুঝতে পেরেছে তা ভালো। পুলিশ চায় তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুক। আত্মসমর্পণ করা তিনজনের মধ্যে রায়হানের বিরুদ্ধে একটি মামলা আছে। বাকি দুজনের প্রোফাইল খুঁজছি।’

যশোর সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম বলেন, পুলিশের ঘোষণা শুনে ওই তিনজনের অভিভাবকরা যোগাযোগ করেন। পরে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে আত্মসমর্পণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

যশোর সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর সাদ্দাম ইয়াসির ও সজলের চাচা তরিকুল ইসলাম বলেন, সজলের আব্বা মারা যাওয়ার পর ওদের আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না। এরপর ঢাকায় একটি কোম্পানিতে চাকরি নিয়ে বাড়ি থেকে কয়েক বছর আগে চলে যায়। বাড়ির কেউ জানত না সজল হিযবুত তাহ্রীরের সঙ্গে যুক্ত। সজল ওর মাকে ফোনে জানায় সে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়েছে। সে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চায়। এরপর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণের ব্যবস্থা করেছি।

"