আইনস্টাইনকে কেন কেউ বিশ্বাস করেননি?

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

মুহূর্তের মধ্যেই আমরা দেখতে পাই কোনো একটি বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার সারা পৃথিবীকে জানিয়ে দিচ্ছে সাফল্যের কথা। মানব জাতিকে আরো এক ধাপ এগিয়ে দেওয়ার কথা। একটি প্রবন্ধ ছাপা হয় এবং সবাই ‘ইউরেকা’ ‘ইউরেকা’ বলে আনন্দে লাফিয়ে ওঠে। কিন্তু দৃশ্যপট সর্বদা এমন নাও হতে পারে। কারণ একজন বিজ্ঞানীকে মাঝে মাঝেই সমগ্র পৃথিবীকে তার আবিষ্কার কিংবা তার প্রাপ্তির কথা জানাতে বেশ বেগ পেতে হয়।

এটা বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের জন্য একেবারে সত্য। ১৯০৫ সালে যখন তিনি তার ‘আপেক্ষিকতাবাদ’ সূত্রটি দেন তখন তাকে ব্রিটিশদের ‘ইথার’ ধারণাটির সঙ্গে এক প্রকার যুদ্ধই করতে হয়েছিল। আইনস্টাইন বলেন যে, মহাবিশ্ব ও সময় পরস্পরের সঙ্গে একই সূত্রে বাঁধা। এটা তখনকার সময়ে মেনে নেওয়া একটু কঠিন ছিল, কারণ সবার মাঝে তখন ইথারের ধারণাটি জেঁকে বসেছিল।

১৯ শতকে এসে ইথারকে ধারণা করা হয় এমন একটি মাধ্যম হিসেবে যেটি মহাবিশ্বকে পরিপূর্ণ করতে পারে। ‘প্রথম ডার্ক ম্যাটার’ হিসেবে এটি তখন পরিচিত। এটি এমন একটি ধারণা, যার সঙ্গে আলো, শব্দ, বিদ্যুৎ এমনকি ‘কোন কিছু নেই’ তার ধারণার সঙ্গেও সম্পর্কিত। কিন্তু আইনস্টাইন বলেন, আসলে এমন কোনো কিছুর অস্তিত্ব পরীক্ষা করে পাওয়া যায় না। কিন্তু তাকে কেউ তখন বিশ্বাস করেননি। ১৯০৭ সালে লর্ড ক্যালভিন বলেন, ‘মহাবিশ্বে এমন কোনো কঠিন পদার্থ অবশ্যই আছে, যা হবে নমনীয়, বাড়ানো-কমানো যাবে চাপের মাধ্যমে এবং মহাকর্ষীয় বলের সঙ্গে যার কোনো সম্পর্কই থাকবে না।’ কিন্তু পরবর্তীতে লর্ড ক্যালভিনের এই ধারণাও গ্রহণযোগ্য হয়নি। কারণ এ ধরনের কোনো পদার্থের অস্তিত্বই নেই।

তারপরও আইনস্টাইন যখন তার তত্ত্বটি নিয়ে ইথারের ধারণার সঙ্গে লড়াই করে যাচ্ছিলেন, তাকে যে দেশটি শুধু বুঝতে চেষ্টা করে, তা হচ্ছে জার্মানি। তার তত্ত্বটি সেখানে আলোচনা করা হয়, সমালোচিত হয় এবং প্রশংসিতও হয়। আইনস্টাইনের যেসব পুস্তক রয়েছে, তা তিন বছর ধরে কেবল জার্মানি থেকেই প্রকাশিত হয়। ১৯১০ সালে ফ্রান্সে আইনস্টাইনকে অবহেলা করা হয়। ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রেও আইনস্টাইন তার তত্ত্ব নিয়ে আলোচনা করতে পারেননি।

১৯২৩ সালের শেষের দিকে ইবেনিজার কানিংহাম ও নরম্যান ক্যাম্পবেল ছিলেন প্রথম দুজন যারা আইনস্টাইনের এই তত্ত্বটি বোঝার চেষ্টা করেন। ইথারের বিরুদ্ধে কেবল ক্যাম্পবেলের আওয়াজই তখন পাওয়া যাচ্ছিল। সালটা ১৯০৫ থেকে ১৯১১।

স্বভাবতই দেখা যাচ্ছে যে, বিজ্ঞানীদের প্রথমে মানুষকে কোনো তত্ত্ব বোঝাতে কিছুটা বেগ পেতেই হয়। কারণ, মানুষ নতুন কিছুকে খুব সহজে আমন্ত্রণ জানাতে পারে না, যেখানে তাদের মাঝে আগে থেকেই একটা ভ্রান্ত ধারণা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু সবশেষে জয়টা বিজ্ঞানেরই হয়।

 

বিজ্ঞানপ্রযুক্তি ডটকম থেকে সংগৃহীত

"