গ্রামীণ আবাসনের সম্ভাবনা দেখছে বিশ্বব্যাংক

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক
ADVERTISEMENT

বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির এই সময়ে নিম্ন ও মধ্যবিত্তের আবাসন খাত দ্রুত প্রসারিত হচ্ছে বলে বিশ্ব ব্যাংকের এক গবেষণায় উঠে এসেছে। গ্রাম ও শহরাঞ্চলের নিম্ন ও মধ্যবিত্তের এই খাতকে শৃঙ্খলায় রাখতে বেশ কিছু সমস্যা চিহ্নিত করার পাশাপাশি সুপারিশও করেছে আন্তর্জাতিক এই উন্নয়ন সহযোগী। তাদের গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের আবাসন খাত ‘খুবই বর্ধনশীল’। শুধু ২০১৪-১৫ অর্থবছরে আবাসন খাতে ঋণের পরিমাণ ছিল ৪৮ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা। ২০২০ সালের মধ্যে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষের আবাসন খাতের বাজার ৮১ হাজার ৮১৬ কোটি টাকায় পৌঁছবে বলে মনে করছে বিশ্ব ব্যাংক। ফলে ২০২০ সালের মধ্যে এই খাতে মোট চাহিদা ১৬৭ শতাংশ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে, বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

ঢাকায় বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপের সিনিয়র ফিন্যান্সিয়াল সেক্টর স্পেশালিস্ট অনন্যা ওয়াহিদ কাদের জানান, ‘সেকেন্ডারি’ বিভিন্ন উৎস থেকে নেওয়া তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এই গবেষণা করেছেন তারা। এখানে গ্রামীণ অঞ্চলে প্রতি মাসে ৩৪ হাজার টাকার নিচে এবং শহরাঞ্চলে মাসে ৬০ হাজার টাকার নিচের উপার্জনকারীকে নিম্ন ও মধ্য আয়ের শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গ্রামীণ অঞ্চলের নিম্ন ও মধ্যবিত্ত সমাজের আবাসন খাতে অর্থায়ন বা বিনিয়োগ ব্যাংকগুলোর জন্য একটি লোভনীয় সুযোগ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। কারণ ২০২০ সালের সামগ্রিক চাহিদার মধ্যে ৩৩ হাজার ৬৪০ কোটি টাকা প্রয়োজন হবে গ্রামীণ অঞ্চলের আবাসন নির্মাণের জন্য।

"