সিরীয় সৈন্যদের ওপর হামলা

‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’ দাবি পেন্টাগনের

পেন্টাগন এক বিবৃতিতে বলেছে, ভুল গোয়েন্দা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে ওই হামলা চালানো হয়েছিল

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০০:০০

বিদেশ ডেস্ক
ADVERTISEMENT

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়-পেন্টাগন দাবি করেছে, সিরিয়ার অভ্যন্তরে দেশটির সেনাবাহিনীর ওপর গত সেপ্টেম্বরের বিমান হামলা ছিল ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’ এবং এতে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘিত হয়নি। পেন্টাগন মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ভুল গোয়েন্দা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে ওই হামলা চালানো হয়েছিল। এই ভুল ইচ্ছাকৃতভাবে করা হয়নি বলে এতে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘিত হয়নি।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর দু’টি এফ-১৬ ও দু’টি এ-১০ জঙ্গিবিমান ইরাক থেকে উড্ডয়ন করে সিরিয়ার আকাশসীমায় অনুপ্রবেশ করে সিরিয়ার সেনা অবস্থানে চারটি ভয়াবহ হামলা চালায়। সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় দেইর-আয-যোর প্রদেশে চালানো এসব হামলায় অন্তত ৯০ জন সিরিয় সৈন্য নিহত হয়। পরে প্রকাশিত রিপোর্ট থেকে জানা যায়, বিমানগুলো ছিল আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক ও ব্রিটেনের।

ওই হামলার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান মার্কিন বিমান বাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রিচার্ড কো বলেছেন, লক্ষ্যবস্তুকে টার্গেট করার ক্ষেত্রে আমরা একটি অনিচ্ছাকৃত ও দুঃখজনক ভুল করেছি। ছয় সপ্তাহ ধরে তদন্ত চালানো সময় সিরিয় সেনাদের ওপর হামলা চালানোর কোনো ইচ্ছা তার চোখে ধরা পড়েনি বলেও দাবি করেন কো।

মধ্য-সেপ্টেম্বরের ওই হামলার পরপরই দেইর-আয-যোর প্রদেশের ওই এলাকাটি দখল করে নেয় উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশ। পরে অবশ্য সিরিয়ার সেনাবাহিনী এলাকাটি পুনর্দখল করে। দামেস্ক ও মস্কো তাৎক্ষণিকভাবে ওই হামলাকে আমেরিকার পরিকল্পিত আক্রমণ বলে অভিহিত করে। রাশিয়া ও সিরিয়া জানায়, দায়েশের অবস্থান শক্তিশালী করতেই ওই হামলা চালিয়েছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট।

সিরিয়ার বিরুদ্ধে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরাইলের : ইহুদিবাদী ইসরাইলের জঙ্গিবিমান থেকে সিরিয়ার দুটি লক্ষ্যবস্তুতে চারটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। রায়-আল-উয়াউম নামের একটি ওয়েবসাইট বুধবার এ খবর দিয়েছে। ক্ষেপণাস্ত্রগুলো দামেস্ক-লেবানন সংযোগ সড়কের সাবুরা এলাকায় আঘাত হেনেছে। এর মধ্যে একটি ক্ষেপণাস্ত্র সিরিয়ার সামরিক বাহিনীর অস্ত্র গুদামে আঘাত হানে এবং অন্য একটি ক্ষেপণাস্ত্র কয়েকটি ট্রাকের বহরে আঘাত হানে। ধারণা করা হচ্ছে- এসব ট্রাকে করে অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম নেয়া হচ্ছিল। বোস্টনভিত্তিক নিউজ ওয়েবসাইট আল-মাসদার বলেছে, ইসরাইলি বিমান থেকে দীর্ঘ পাল্লার পোপেইয়ি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়। আকাশ থেকে ভূমিতে নিক্ষোপযোগ্য এ ক্ষেপণাস্ত্র ইসরাইলের সেনাবাহিনী তৈরি করেছে। ওয়েবসাইটের খবরে বলা হয়েছে, ইসরাইলের জঙ্গিবিমানটি সিরিয়ার আকাশে ঢোকে নি তবে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করার জন্য লেবাননের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে।

সিরিয়া যখন উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশসহ নানা গোষ্ঠী বিরুদ্ধে লড়াই করছে তখন ইহুদিবাদী ইসরাইল প্রায়ই সিরিয়ার সামরিক অবস্থানে এমন হামলা করছে। ইসরাইল হচ্ছে সিরিয়ায় তৎপর দায়েশসহ উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর প্রধান সমর্থক।

আসাদকে সরাতেই সেনা পাঠিয়েছেন এরদোগান : তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করতেই দেশটিতে সেনা পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার এরদোগান আঙ্কারায় বলেন, ‘আমরা (সিরিয়ায়) প্রবেশ করেছি রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী ও অত্যাচারী আল-আসাদের শাসনের অবসান ঘটাতে। অন্য কোনো কারণে আমরা সেদেশে প্রবেশ করা হয়নি।’ সিরিয়ার ভূমি জবরদখলের ইচ্ছা আঙ্কারার নেই উল্লেখ করে তুর্কি প্রেসিডেন্ট দাবি করেন, তার উদ্দেশ্য সিরিয়ায় ‘ন্যায়বিচার’ প্রতিষ্ঠা করা।

তবে নিজের দেশ রেখে আরেক দেশে কথিত ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার অধিকার তার আছে কিনা সেকথা উল্লেখ করেননি এরদোগান।

সিরিয়ায় ২০১১ সালের গোড়ার দিকে বিদেশি মদদে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় চার লাখ লোক নিহত হয়েছে বলে জাতিসংঘ জানিয়েছে। কিন্তু তুর্কি প্রেসিডেন্টের দাবি, তার গণনামতে সিরিয়ায় সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১০ লাখ মানুষ নিহত হয়েছে। সিরিয়ায় সংঘর্ষ বন্ধ করতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য তিনি জাতিসংঘকে দায়ী করেন। সূত্র-আরটি ডটকম

"