মার্কিন হেলিকপ্টারকে ইরানি রণতরীর ভীতি প্রদর্শন

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

বিদেশ ডেস্ক
ADVERTISEMENT

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর একটি হেলিকপ্টারকে ছোট একটি ইরানি যুদ্ধজাহাজ ভীতি প্রদর্শন করেছে বলে অভিযোগ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের দুই প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা। শনিবার হরমুজ প্রণালীতে ওই ঘটনা ঘটেছে বলে সোমবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন তারা। হেলিকপ্টারের দিকে ইরানি জাহাজের ‘অস্ত্র তাক’ করার ঘটনাকে ‘অনিরাপদ ও অপেশাদারি’ আচরণ বলে বর্ণনা করেছেন ওই দুই কর্মকর্তা।

চলতি বছরে হরমুজ প্রণালীতে এ ধরনের বেশ কয়েকটি ধারাবাহিক ঘটনার সর্বশেষ ঘটনা এটি, তবে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর এই প্রথম এ ধরনের ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেল।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি নির্বাচিত হলে পারস্য উপসাগরে যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীকে কোনো ইরানি জাহাজ উত্ত্যক্ত করলে ‘তাকে গুলি করে ডুবিয়ে দেওয়া হবে’। ৮ নভেম্বরের নির্বাচনে জয়ী ট্রাম্প আগামী ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। ঘটনার বিষয়ে মন্তব্যের জন্য ট্রাম্পের সহযোগীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাৎক্ষণিকভাবে অনুরোধে সাড়া দেননি তারা। তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনার বিষয়ে ইরানি পক্ষ থেকেও কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রের ওই কর্মকর্তারা জানান, হরমুজ প্রণালীতে আন্তর্জাতিক জলসীমায় অবস্থানরত ইরানি রেভ্যুলেশনারি গার্ডের দুটি জাহাজের প্রায় ৮০০ মিটার দূর দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর এমএইচ-৬০ হেলিকপ্টারটি উড়ে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। একটি জাহাজ হেলিকপ্টারটির দিকে একটি ‘অস্ত্র তাক’ করে বলে জানান ওই দুই কর্মকর্তা। তারা বলেন, আমাদের মান অনুযায়ী এই আচরণ উস্কানিমূলক এবং উত্তেজনা তৈরির চেষ্টা।

তবে এই ঘটনায় হেলিকপ্টারের ক্রুরা হুমকিবোধ করেননি বলে দাবি করেছেন তারা। হেলিকপ্টারটির দিকে কী ধরনের অস্ত্র তাগ করা হয়েছে তাৎক্ষণিকভাবে তা পরিষ্কার হওয়া যায়নি। সেপ্টেম্বরে এ ধরনের অপর একটি ঘটনায় পারস্য উপসাগরে যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর একটি উপকূলীয় টহল জাহাজের দিয়ে ধেয়ে যায় ইরানের কয়েকটি ছোট সামরিক নৌযান। ইরানি নৌযানগুলো ৯১ মিটারের মধ্যে চলে আসার পর যুক্তরাষ্ট্রের জাহাজটি দিক পরিবর্তনে বাধ্য হয়।

"