ইসরাইলে দাবানল : পালাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ

প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর ২০১৬, ০০:০০

বিদেশ ডেস্ক
ADVERTISEMENT

ইসরাইলের উত্তরাঞ্চলের হাইফা নগরীতে বৃহস্পতিবার দাবানলের ঘটনায় হাজার হাজার মানুষ পালিয়ে গেছে। এদিকে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, কেউ আগুন লাগিয়েছে প্রমাণিত হলে তাকে সন্ত্রাসী তৎপরতা হিসেবে দেখা হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গিলাদ এরদান বলেন, কমপক্ষে অর্ধেক দাবানলের সৃষ্টি হয়েছে ‘আগুন সন্ত্রাসের’ কারণে। অন্যদিকে অপর এক মন্ত্রী দাবানলের জন্য দেশের আরব সংখ্যালঘুদের দিকে আঙুল তুলেছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, দমকল কর্মীরা তৃতীয় দিনের মত দাবানল নেভানোর চেষ্টা করছেন। সেনাবাহিনী দমকল কর্মীদের সহায়তার জন্য রিজার্ভ বাহিনী তলব করেছে। অনেক বাসিন্দা তাদের বাড়িঘরে আটকা পড়েছেন। হাইফা মেয়র ইয়োনা ইয়াহাব বলেন, নগরীতে বসবাসকারী আড়াই লাখ মানুষের মধ্যে ৬০ হাজার জনকে অপসারণ করা হয়েছে।

পুলিশের মুখপাত্র মিকি রোজেনফেল্ড বলেন, ছয়টি পৃথক দাবানলের কারণে হাইফার পাঁচটি এলাকার বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার জন্য বলা হয়েছে। কার্মেল অঞ্চলের উদ্ধারকারী সেবা সংস্থার প্রধান নাফতালি রোটেনবার্গ বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে এবং একটি বাড়ি থেকে অন্য বাড়িতে ছড়িয়ে পড়ছে। তিনি বলেন, অনেকক্ষেত্রে বাসিন্দাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাদের বাড়ি থেকে সরিয়ে আনা হচ্ছে।

নিজ বাড়ি থেকে পালিয়ে আসা হাইফার বাসিন্দা ইয়ায়েল হামে বলেন, এটা খুবই ভীতিকর ছিল। তিনি বলেন, প্রায় ২০ তলার মত উঁচু হয়ে আগুন জ্বলছে। হামে বলেন, ২০১০ সালে লাগা আগুনের চাইতে এবারেরটা আরো বেশি ভয়ঙ্কর হতে পারে। ২০১০ সালের দাবানলে সেখানে ৪৪ জনের প্রাণহানি হয়েছিল। মাগেন ডেভিড আডম মেডিক্যাল সার্ভিস জানায়, এবারের দাবানলে আহত হয়ে কমপক্ষে ৬৫ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

দমকল বাহিনীর এক মুখপাত্রের তথ্যানুযায়ী, অনেক বাসিন্দা তাদের বাড়িঘরে আটকা পড়েছেন। জেরুজালেমের শহরতলীর দুটি এলাকা এবং অধিকৃত পশ্চিমতীরে ইহুদি বসতি স্থাপনা তালমনের কাছে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। টানা দুই মাসের খরার পর গতকাল বৃহস্পতিবার এ আগুন লাগে।

প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেছেন, ওই এলাকায় কমপক্ষে ১৫ টি দাবানলের সৃষ্টি হয়েছে। মিটিওটেক মেট্রোলজি ওয়েবসাইটের প্রধান নোয়া ওলফসন বলেন, শরতের তীব্র শুষ্ক বাতাসে এ আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। তিনি বলেন, আগামী কয়েক দিনের আবহাওয়ার পূর্বাবাসে আশার কিছু নেই। বাতাস কিছুটা কমতে পারে। তবে আগামী সপ্তাহের শুরুর আগ পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভবনা নেই।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এরদান বলেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অর্ধেক আগুন লাগানো হয়েছে। তিনি একে আগুন সন্ত্রাস বলে উল্লেখ করেছেন। আর শিক্ষামন্ত্রী দাবানলের জন্য দেশের আরব সংখ্যালঘুদের দিকে আঙুল তুলেছেন। তবে ইসরাইলি পার্লামেন্টে আরব ব্লকের প্রধান আইমান ওদেহ বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে এ অভিযোগ আরবদের বিরুদ্ধে উস্কানির শামিল।

তিনি বলেন, দাবানলে আরব সংখ্যালঘুদের বসবাসের অনেক এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা শতশত ও হাজার হাজার বছর ধরে এ দেশে বসবাস করছি এবং আমরা এটা পুড়িয়ে দিতে পারি না।’

 

 

"