ছোট ছোট শারীরিক অক্ষমতার সমাধান

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৬, ১৩:৪১

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

প্রতিদিন কত রকম শারীরিক সমস্যায় পড়ি আমরা। কখনো সকালে ঘুমে থেকে উঠেই দেখি গলা বসে গেছে। কখনো বুকে ঠাণ্ডা জমেছে, নাক বন্ধ হয়ে আছে। আবার হয়ত সকালের নাস্তা বানাতে গেছেন, পুড়ে গেল হাত! এমন টুকটাক ঘটনা ঘটতেই থাকে জীবনে। তার জন্য থেমে থাকা যায় না। কাজে নেমে পড়তেই হয়। তাই নিজেকে চটজলদি সুস্থ করার কিছু কৌশল যদি জানা থাকে তাহলে সহজ হয়ে যায় অনেক কিছুই।

আসুন জেনে নিই এমন কিছু কৌশল যা কাজে লাগবে হরহামেশা।

ইনজেকশনে ভয়?

আপনি কি ভ্যাক্সিনেশন ভয় পান? ব্যথা পাওয়া এড়াতে আপনি যা করতে পারেন তা হল ইনজেকশন পুষ করার সময় কাশুন! গবেষণায় দেখা গেছে, ইনজেকশন গ্রহণের সময় যারা কাশেন তারা কম ব্যাথা পান। কারণ কাশলে রক্তের চাপ অনেক বেড়ে যায় ফলে ব্যাথার অনুভূতি হালকা হয়ে আসে।

যদি রাতে বেশি খেয়ে ফেলেন

বেশি খাওয়ার পর কখনোই ঘুমাতে যাওয়া ঠিক নয়। অবশ্যই খাওয়ার ২/৩ ঘন্টা পর ঘুমাতে যান। তবে যদি ঘুমাতে যেতেই হয় তাহলে বাম দিকে কাত হয়ে ঘুমোবেন। এতে আপনার খাদ্যনালী থাকবে পাকস্থলীর নিচে। এতে এসিডিটি হয়ে তা গলা পর্যন্ত উঠবে না আর আপনার ঘুমে কোন ব্যাঘাত ঘটবে না।

দাঁতের ব্যথা

আপনার যদি দাঁত ব্যথা হয় তাহলে অবশ্যই আপনার দ্রুত দাঁতের ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিৎ। তবে আপাতত যা করতে পারেন তা হল, বরফের টুকরো নিন। সেটি আপনার মধ্যাঙ্গুল এবং বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে হাতের তালুতে চেপে ধরুন। ব্যথার পরিমাণ কমে যাবে অর্ধেক। হাতের এই অংশ চাঙ্গা করলে তা নার্ভ থেকে আসা ব্যথার অনুভূতিকে ব্লক করে দেয়।

নাক দিয়ে রক্ত ঝরলে

পিটার দেস্মারাইস এম ডি পরামর্শ দেন নাক দিয়ে রক্ত পড়া বন্ধ করতে হলে ছোট্ট এক টুকরো তুলা নিন এবং সেটি চেপে ধরুন আপনার দন্তমূলে বা মাড়িতে। নাক বরাবর মুখের ভেতরের মাড়িতে হালকা চাপ দিন। রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ আপনি রক্ত আসার পথটিই আটকে দিয়েছেন। কিন্তু এরপরও যদি রক্ত পড়া না থামে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যান।

শুনতে না পেলে

কখনো কখনো অতরিক্ত শব্দের মাঝে আমরা কথা শুনতে পাই না। অবশ্যই কথা শোনার জন্য কান এগিয়ে নিয়ে যাবেন। কিন্তু সেটা যেন আপনার ডান কান হয়। কারণ ডান কান বিশেষভাবে তৈরি শব্দ চিহ্নিত করার জন্য।

আঙ্গুল পুড়ে গেলে

আঙ্গুল পুড়ে গেলে সবচেয়ে প্রচলিত, সিম্পল কিন্তু কার্যকরি কাজটিই করবেন। তা হল, পানি দেওয়া। ঠাণ্ডা পানিতে হাত ডুবিয়ে দিন। আর বেশী পুড়ে গেলে পেস্ট লাগিয়ে নিন ঝটপট, জ্বলুনী কমা যাবে, দাগও পড়বে না।