তারেক রহমানকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

প্রকাশ : ২৯ নভেম্বর ২০১৬, ১৬:০৪ | আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০১৬, ১৭:৫৯

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে (২০০৭ সাল) চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগে গুলশান থানায় দায়ের করা তিন মামলায় তাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। 

একইসঙ্গে এ তিন মামলাসহ মোট পাঁচ মামলার কার্যক্রমের ওপর থাকা স্থগিতাদেশ তুলে নিয়েছেন আদালত। এক মাসের মধ্যে যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত তারেক রহমানকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

এর আগে দেয়া মামলার কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ তুলে নিয়ে মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। 

এই আদেশের ফলে তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও আয়কর সংক্রান্ত পাঁচটি মামলার কার্যক্রম চলবে বলে জানা গেছে।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস। সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল তিতাস হিল্লোল রেমা।
 
এর মধ্যে চাঁদাবাজির তিনটি মামলায় তারেক রহমানকে ৩০ দিনের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, দুটি যুক্তিতে আদালত আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। তারেক রহমানের করা পৃথক পাঁচ রিটের নিষ্পত্তি করে এ রায় দেয়া হয়।

তবে তারেক রহমানের আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, মুদ্রাপাচার মামলায় আইনের দৃষ্টিতে তারেক রহমান পলাতক বলে আদালত এসব মামলায় তাদের অংশগ্রহণ করতে দেননি।

সূত্র জানা যায়, ২০০৭ সালে চাঁদাবাজির অভিযোগে গুলশান, শাহবাগ ও কাফরুল থানায় পৃথক তিনটি মামলা হয়। তারেক রহমানের করা রিটের পরিপ্রেক্ষিতে এই তিন মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল দেন আদালত। 

অন্যদিকে ২০০৭ ও ২০০৮ সালে আয়কর বিবরণীতে অসত্য তথ্য দেয়ায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিম্ন আদালতে পৃথক দুটি মামলা করে। এই দুই মামলায়ও তারেকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট রুল ও মামলার কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ দিয়েছিলেন। 

সম্প্রতি এসব রুল শুনানির জন্য হাইকোর্টে আসে। নয় বছর ও আট বছর আগে হওয়া মামলায় স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে রুল খারিজ করে রায় দেন আদালত।