ডা. ইকবালের স্ত্রী-সন্তানের সাজা বহাল, গ্রেপ্তারে বাধা নেই

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০১৬, ১৪:০৩

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

দুর্নীতির মামলায় আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাংসদ ডা. এইচ বি এম ইকবালের স্ত্রী মমতাজ বেগম, দুই ছেলে মঈনুদ্দিন ইকবাল, ইমরান ইকবাল ও মেয়ে নওরিন ইকবালকে নিম্ন আদালতের দেওয়া সাজার কার্যকারিতা স্থগিত করে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।
 
এর ফলে ইকবালের স্ত্রী মমতাজ বেগম, দুই ছেলে ও এক মেয়েকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে হবে বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।
 
রোববার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।
 
আইনজীবী সূত্রে জানা যায়, মামলায় ২০০৮ সালে এইচ বি এম ইকবাল, তার স্ত্রী মমতাজ বেগমসহ দুই ছেলে ও এক মেয়েকে সাজা দেন বিশেষ আদালত। এইচ বি এম ইকবাল নিম্ন আদালতে ২০১০ সালে আত্মসমর্পণ করেন এবং পরের বছর হাইকোর্ট তাকে খালাস দেন। 
 
তবে তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও মেয়ে আদালতে আত্মসমর্পণ করেননি কখনো। হাইকোর্টে তাদের সাজার কার্যকারিতা স্থগিত হয়, যার মেয়াদ শেষ হয় ২০১০ সালের নভেম্বরে। ছয় বছর চুপচাপ থেকে নতুন করে স্থগিতাদেশ চাওয়া হলে গত ১৮ অক্টোবর বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মো. সেলিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ সাজা আরো ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেন। 
 
দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, ওই চারজনের সাজার ওপর সর্বশেষ স্থগিতাদেশ স্থগিত চেয়ে ১৫ নভেম্বর আদালতে আবেদন করে দুদক। ১৬ নভেম্বর চেম্বার জজ আদালত ১৮ অক্টোবরের স্থগিতাদেশটি স্থগিত করেন।
 
রোববার আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চ  নিম্ন আদালতে সাজার ওপর হাইকোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশ তুলে নেন।
 
এর ফলে এইচ বি এম ইকবালের স্ত্রী মমতাজ বেগম, দুই ছেলে ও এক মেয়েকে  আদালতে আত্মসমর্পণ করতে হবে।
 
অসাধু উপায়ে সম্পদ অর্জনের দায়ে বিশেষ জজ আদালত ২০০৮ সালে এইচ বি এম ইকবালকে ১০ বছর, মিথ্যা সম্পদ বিবরণী দাখিলের কারণে আরো ৩ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করেন। তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েকে ৩ বছর করে কারাদণ্ড দেন এবং প্রত্যেককে জরিমানা করেন ১ লাখ টাকা।