ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারদের বিমান যে কারণে বিধ্বস্ত

প্রকাশ : ০১ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৯:৩৫

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

বিধ্বস্ত বিমানের ফ্লাইট ডেটা রেকর্ডার উদ্ধার করা হয়েছে

কলম্বিয়ায় ব্রাজিলের ফুটবলারদের বহনকারী বিমানটি জ্বালানী শেষ হয়ে যাওয়ায় বিধ্বস্ত হয়েছিল বলে জানা যাচ্ছে। ফাঁস হওয়া একটি অডিও রেকর্ডিং থেকে এই তথ্য জানা যায়।

এয়ার ট্রাফিক টাওয়ারের সে অডিও টেপে বিমানের পাইলটকে বৈদ্যুতিক গোলোযোগ এবং জ্বালানী সংকটের কারণে বারবার বিমান অবতরণের অনুমতি চাইতে শোনা যায়। এয়ার ট্রাফিক টাওয়ারের সাথে পাইলট তার শেষ কথোপকথনে জানান যে, তিনি ৯ হাজার ফিট ওপর দিয়ে উড়ছেন।

বিমানে সে সময় ব্রাজিলের শাপেকোয়েন্সে ফুটবল দলের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা এবং ২০ জন সাংবাদিকসহ ৭৭ জন ভ্রমণ করছিলেন। যাদের মধ্যে মাত্র ৬ জন বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পরও প্রাণে বেঁচেছেন। লা মিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি থেকে কলম্বিয়ার মেডিন এয়ার ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণকক্ষের সাথে কথোপকথনটি স্থানীয় একটি রেডিও স্টেশনের কাছে ফাঁস হয়। এরপর কলম্বিয়ার বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে এটি প্রচার করা হয়।

অডিও টেপে প্রথমেই পাইলটকে বলতে শোনা যায় যে, বিমানটিতে সম্পূর্ণভাবে বৈদ্যুতিক বিপর্যয় হয়েছে এবং কোন জ্বালানী নেই।

এরপরই নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে দমকল বাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়। বিমানটিকে রাডারে পাওয়া যাচ্ছে না বলেও জানায় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। এরপর দিক নির্দেশনা দিতে থাকার এক পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সাথে বিমানটির সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

ছোট বিমানবন্দরের জন্য লা মিয়া এয়ারলাইন্সের বিমান

এই অডিও টেপের ফলে অনেকটাই নিশ্চিত হওয়া গেল যে, জ্বালানী সংকট বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে। এরআগে কলম্বিয়ার সামরিক সূত্র থেকে বলা হয়েছিল যে, বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পরও যেহেতু কোন বিস্ফোরন হয়নি সেকারণে বিমানটিতে জ্বালানী না থাকার একটি জোর সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

তবে তদন্তকারী সংস্থা থেকে দুর্ঘটনার কোন কারণ এখনো পর্যন্ত জানানো হয়নি এবং সবকিছু বিশ্লেষণ করে সঠিক কারণ নির্ধারণ করতে কয়েক মাস সময়ও লেগে যেতে পারে। বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের স্মরণে ব্রাজিলে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন চলছে। সূত্র: বিবিসি