কাগজ আতর আগর রপ্তানির বিপরীতে দেয়া হবে নগদ সহায়তা

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০১৬, ১১:৪৪ | আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০১৬, ১১:৪৬

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

কাগজ ও কাগজ জাতীয় পণ্য রপ্তানির বিপরীতে এখন থেকে ১০ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দেয়া হবে। আগর ও আতর রপ্তানিতে দেয়া হবে ২০ শতাংশ হারে। সার্কুলার জারির তারিখ থেকে জাহাজীকরণ করা পণ্য এ ভর্তুকি সুবিধার আওতায় আসবে। রোববার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ব্যাংকগুলোতে পাঠানো হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, নিজস্ব কারখানায় উত্পাদিত আগর ও আতর রপ্তানির ক্ষেত্রে নিট এফওবি মূল্যের ওপর ২০ শতাংশ হারে ভর্তুকি দেয়া হবে। উভয় ক্ষেত্রে রপ্তানির স্বপক্ষে প্রয়োজনীয় দলিলাদি যেমন- বিল অব লেডিং বা এয়ারওয়ে বিল, কমার্শিয়াল ইনভয়েস, প্যাকিং তালিকা, বিল অব এক্সপোর্ট ব্যাংকে দাখিল করতে হবে। ভর্তুকি দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো ব্যাংকের বিরুদ্ধে অনিয়ম পাওয়া গেলে শাস্তি দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সার্কুলারে আরও বলা হয়েছে, রপ্তানি বাণিজ্যকে উত্সাহিত করতে সরকার দেশে উত্পাদিত কাগজ ও কাগজ জাতীয় পণ্য রপ্তানির বিপরীতে ভর্তুকি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নিজস্ব কারখানায় উত্পাদিত কাগজ ও কাগজ জাতীয় পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে জাহাজভাড়া ব্যতীত (এফওবি) নিট মূল্যের ওপর ১০ শতাংশ হারে ভর্তুকি দেয়া হবে। তবে শর্ত হলো— কাগজ ও কাগজ জাতীয় পণ্য উত্পাদনের কোনো পর্যায়ে ডিউটি ড্র-ব্যাক সুবিধা নেয়া যাবে না। এছাড়া কাগজ ও কাগজ জাতীয় পণ্য রপ্তানির বিপরীতে শুল্ক বন্ড সুবিধা পেয়ে থাকলে এ সুবিধা পাওয়া যাবে না। ইপিজেড এলাকায় অবস্থিত প্রতিষ্ঠান এ সুবিধা পাবে না।

জানা গেছে, রপ্তানি উৎসাহিত করতে বেশ আগ থেকেই বিভিন্ন সুবিধা দিয়ে আসছে সরকার। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে গরু মহিষের নাড়ি, ভুঁড়ি, শিং ও রগ রপ্তানির বিপরীতে নতুন করে ১০ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা হচ্ছে। এছাড়া শস্য ও শাক সবজির বীজ এবং পাটকাঠি থেকে উত্পাদিত কার্বনে ২০ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দেয়া হচ্ছে। আর সাভারে চামড়া শিল্প নগরীতে স্থানান্তরিত প্রতিষ্ঠান থেকে চামড়া রপ্তানি করে ৫ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।