বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম এক সপ্তাহে সর্বনিম্ন

প্রকাশ | ০৯ আগস্ট ২০১৬, ১১:১৯

অনলাইন ডেস্ক

আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম কমেছে, যা এক সপ্তাহের মধ্যে সর্বনিম্ন। শুক্রবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রে জুলাইয়ে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি কর্মসংস্থান বৃদ্ধির খবর দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের (ফেড) সুদহার বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নিম্নমুখী রয়েছে মূল্যবান ধাতুটির বাজার।

ব্লুমবার্গ জেনেরিক প্রাইসিংয়ের তথ্য অনুসারে, গতকাল সিঙ্গাপুরের স্থানীয় সময় বেলা ১টা ৭ মিনিটে মূল্যবান ধাতুটির দাম কমেছে আউন্সে দশমিক ৩ শতাংশ। তাত্ক্ষণিক সরবরাহ চুক্তিতে এদিন প্রতি আউন্স স্বর্ণ লেনদেন হয় ১ হাজার ৩৩১ ডলার ৫৯ সেন্টে, যা ২৯ জুলাইয়ের পর সবচেয়ে কম। একই দিন বেলা ১টা ৭ মিনিটে পণ্যটির দাম ছিল ১ হাজার ৩৩৭ ডলার ৯৩ সেন্ট। শুক্রবার পণ্যটির দাম ১ দশমিক ৯ শতাংশ কমেছে, যা ৯ মে পর সর্বোচ্চ দরপতন।

সাম্প্রতিক সময়ে বড় অর্থনীতির দেশগুলোতে দুর্বল ও নিম্ন সুদহার স্বর্ণ বিনিয়োগকারীদের কাছে পুঁজি সঞ্চয়ের মাধ্যম হয়ে উঠেছিল। এ কারণে গত বছরের টানা দরপতনের পর এবার পণ্যটির সার্বিক দাম ২৬ শতাংশ বেড়েছে। তবে এবার ফেড সুদ হার বৃদ্ধির ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারে। কেননা চলতি বছরের জুনে ২ লাখ ৯২ হাজারের কর্মসংস্থান সৃষ্টির পর জুলাইয়ে আরো ২ লাখ ৫৫ হাজার নতুন কর্মসংস্থান হয়েছে। তা সুদহার বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে জোরালো করে তুলেছে।

প্রত্যাশার চেয়ে বেশি কর্মসংস্থানের সুবাদে যুক্তরাষ্ট্রে বেকারত্বের হার ৪ দশমিক ৯ শতাংশে নেমে এসেছে। এতে ডিসেম্বর ফেডের সুদহার বৃদ্ধির সম্ভাবনা ৩৭ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪৭ শতাংশে পৌঁছেছে।

তবে সিঙ্গাপুরভিত্তিক আইজি এশিয়া পিটিইর বাজার কৌশলী বার্নার্ড এডব্লিউ এক ই-মেইলে জানান, বাজারে এখনো বছরের বাকি সময়ে স্বর্ণের দরবৃদ্ধির প্রবণতা রয়েছে। এখন পর্যন্ত বন্ডে ভালো মুনাফা পাওয়া যাচ্ছে না, আর এর মূলে রয়েছে নিম্নমুখী সুদহার। তিনি বলেন, চলতি বছর শুধু একবারের জন্য ফেডের সুদহার বাড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে; যা স্বর্ণের বাজারে দরবৃদ্ধির প্রবণতায় কোনো প্রভাব ফেলবে না।

এদিকে চীনের সাংহাই গোল্ড এক্সচেঞ্জে ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ বিশুদ্ধ স্বর্ণের দাম ১ দশমিক ৯ শতাংশ কমেছে। গতকাল পণ্যটি প্রতি গ্রাম ২৮৬ দশমিক ৬৩ ইউয়ানে লেনদেন হয়। সাংহাই ফিউচার এক্সচেঞ্জে ডিসেম্বর সরবরাহের চুক্তিতে স্বর্ণের দাম কমেছে ১ দশমিক ৯ শতাংশ। গতকাল পণ্যটি প্রতি গ্রাম ২৮৭ দশমিক ৭৫ ইউয়ানে বিক্রি হয়। স্বর্ণের পাশাপাশি রুপার দামও কমেছে।

সাংহাইয়ে রুপার দাম কমেছে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ, যা গত ২২ এপ্রিলের পর সবচেয়ে বেশি। এইদিন পণ্যটি কেজিপ্রতি ৪ হাজার ৩৩৫ ইউয়ানে লেনদেন হয়। অবশ্য স্পট মার্কেটে রুপা ও প্লাটিনামের দাম দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে। আর প্যালাডিয়ামের দাম দশমিক ১ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।