‘তেরা আজাদি ঝুটা হায়’

প্রকাশ : ০৪ আগস্ট ২০১৬, ১৮:৫৬ | আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০১৬, ১৯:৪৫

অনলাইন ডেস্ক
ADVERTISEMENT

ভারতের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে দেশটির রেডিও এফএম আয়োজিত ‘কনসার্ট আজাদী’তে মাইলস-এর অংশগ্রহণ না করা নিয়ে চলছে তুমুল বিতর্ক। ভারতীয় ব্যান্ড ফসিলস এবং তার প্রধান গায়ক রূপম-এর আপত্তি এবং বিক্ষোভের মুখে কনসার্টের আয়োজকরা বাংলাদেশী ব্যান্ড মাইলসের অংশগ্রহণ বাতিল করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুই দেশের নাগরিকরা এ নিয়ে বিতর্কে মেতেছেন।

মাইলস-এর শিল্পী শাফিন আহমেদ ও মানাম আহমেদ জানিয়েছেন তাদের প্রতিক্রিয়া। ভারতের ফসিলস-ও বিষয়টিকে ব্যক্তিগত নয় বরং নৈতিক বলে তাদের ফেসবুকে জানিয়েছে।  

বাংলাদেশের গীতিকার লতিফুল ইসলাম শিবলী তার ফেসবুক প্রতিক্রিয়ায় জানান,  ‘তোমরা মাইলসকে বয়কট করেছ, কিন্তু আমরা তোমাদের বয়কট করলে পেটে টান পড়বে যে দাদা ! মাইরি । ক্ষমা না চাইলে, তেরা আজাদি কনসার্টে মাইলস যাবে না, তেরা আজাদি ঝুটা হায়।’ 

এর প্রতিক্রিয়া হিসেবে একজন ভারতীয় ভক্ত বলেন, ফসিলসকে চিরতরে ভালোবেসেছি। এটার পরে রেসপেক্ট আরও বেড়ে গেলো। বাংলাদেশি ব্যান্ড বলতে মাইলসের কয়েকটা গান শুনতাম। বাট আর না। কান্ট্রি কামস ফার্স্ট।

বাংলাদেশি ভক্ত মিলন রহমান বলেন, রুপমের এমন চরিত্র অনাকাঙ্খিত, সত্যিই আশাহত করেছে আমাকে, আমি দেখেছিলাম ২০১৪ তে যখন ফসিলস দেশ টিভিতে পারফর্ম করতে ঢাকা এসেছিলো সেই লাইভ অনুষ্ঠানে শাফিন ভাই ফোন করে তাদের উইশ করেছিলো এবং রুপম তখন বলেছিলেন আমরা মাইলস এর গান ছোটবেলা থেকেই দেখছি এবং শিখছি। যাকে দেখে শেখা তার বিরুদ্ধেই এমন অপপ্রচার আশাহত করেছে আমাদের। 

শাফিনের ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে তাকে ‘ভারত বিদ্বেষী’ বলে ভারতীয় ব্যান্ড ফসিলের মূল গায়ক রূপম ইসলাম জানান, তিনি মাইলসের সাথে একই মঞ্চে গান গাইতে পারবেন না। এরপর আয়োজকরা দুই ব্যান্ডকেই আয়োজন থেকে বাদ দেয়। এর প্রতিক্রিয়ার জবাব দেন শাফিন তার ফেসবুক পেজে। শাফিনের ভক্ত, মাইলসের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার, রূপমের ‘অ-শিল্পীমূলক’ আচরণ ও মাইলসের বিরুদ্ধে গড়ে তোলা হেইট ক্যাম্পেইন নিয়ে ১১ মিনিট ১২ সেকেন্ডের এই ভিডিওতে কথা বলেন।

ভারত বিদ্বেষকে তিনি ‘মিথ্যা অপবাদ’ বলে অভিহিত করেন।  শাফিন বলেন, আমরা শুনেছি কলকাতায় মাইলসের কনসার্টকে ঘিরে সেখানে একটি ব্যান্ড তাদের ভক্তদের নিয়ে অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা করছে। আমাদের ব্যক্তিগত ফেসবুক স্ট্যাটাস পুঁজি করে ‘হেইট ক্যাম্পেইন’-এর মতো করে কিছু করার চেষ্টা তারা করে যাচ্ছে। এই বিষয়ে আমি পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই, আমরা বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশের ক্ষতি হোক এরকম কিছু কখনো চাই না এবং সচেতন নাগরিক হিসেবে দেশের ভালোমন্দ ইস্যুতে কিছু বলার অধিকার আমি বা আমরা রাখি। মনে হয় না আমার ব্যক্তিগত স্ট্যাটাসে কী লিখছি তা টেনে এনে ক্ষুব্ধ হওয়ার কোনো কারণ দেখি না। 

দেশপ্রেম মানেই যে ভারতবিদ্বেষ না, এই কথাটি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি আর আমার ভাই হামিনের যে লেখাগুলোকে ভারত বিদ্বেষ বলে রেফারেন্স দেওয়া হচ্ছে সেগুলোর সবই দেশপ্রেম। আর দেশপ্রেমের জায়গা থেকে যে কথাগুলো লেখায় বলেছি সেটা ভারত বিদ্বেষ নয়। ভারত বিদ্বেষ একটা ভিন্ন বিষয়। আমার দেশের ক্ষতি হয় এমন বিষয় নিয়ে আমি কথা বলতে চাইতেই পারি, সে অধিকারও আমার আছে। দ্যাট ইজ নট নেসেসারিলি ভারত বিদ্বেষ বা কোনো ব্যক্তি বিশেষকে উদ্দেশ করে কথা নয়।

এ নিয়ে মানাম আহমেদ বলেন, আমাদের বাংলাদেশটা ছোট হতে পারে, কিন্তু আমাদের মন বিরাট। ভারতীয় শিল্পীরা ঘনঘন বাংলাদেশে আসছে। নিয়মিতই আসছে, কিন্তু কখনোই বাংলাদেশের শিল্পীরা বাধা দেয়নি। বরং আন্তর্জাতিকভাবে বাংলা গানকে সমৃদ্ধ করতে আরো বিদেশি শিল্পীদের নিয়ে এমন আয়োজনের চিন্তা ভাবনা চলছে। অথচ খোদ কলকাতায় বাংলার বিখ্যাত ব্যান্ড মাইলসকে গাইতে না দেয়ার ক্যাম্পেইন করাটা ফসিলস কিংবা রূপমের মতো শিল্পীকে বরং মানুষের কাছে ‘লজ্জার পাত্র’ হিসেবে পরিচয় করাবে।  

শাফিন আরো বলেন, এক সময় মাইলসের প্রবল ভক্ত ছিলেন ফসিলসের ভোকাল রূপমসহ অনেকে। কিন্তু এখন কি এমন হলো যে সেই সম্মানের জায়গাটা নষ্ট হয়ে গেল। ফসিলসের কাছে প্রশ্ন রেখে সেই কথাটাও নিজের ভিডিওতে জানিয়ে শাফিন আহমেদ বলেন, তাদের (ফসিলস) যাত্রার শুরুতে মাইলসের কতো বড় ভক্ত তারা ছিলেন, যদিও এখন কতোটা ভক্ত সেটা জানি না। তবে আমার মনে আছে কলকাতার কোনো এক হোটেলে তাদের প্রথম অ্যালবামটা আমাদের হাতে দেয়ার জন্য কয় ঘন্টা তারা অপেক্ষা করেছিলেন! তো সম্মানের জায়গাটা এতো তাড়াতাড়ি নষ্ট হবে কেন? 

উল্লেখ্য, গত বছরের মার্চে রূপম বাংলাদেশকে নতুন পাকিস্তান বলে সমালোচিত হয়েছেন ।  ক্রিকেট বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে ভারত অষ্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজিত হলে তিনি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন।  সেখানে বাংলাদেশকে তিনি নতুন পাকিস্তান এবং বাংলাদেশের মানুষকে ছোটলোক বলে উল্লেখ করেন ।  যদিও দুইঘন্টা পর চাপের মুখে তিনি সেই স্ট্যাটাস মুছে ফেলেন । 

মাইলস ভারতের কনসার্টটিতে যাবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে ।  কনসার্টটির আয়োজকরা ঘোষণা দিয়েছেন যে তারা আসলে এই দুই ব্যান্ডের কোন ব্যান্ডকে কনসার্টে রাখছেন না । আয়োজকদের ফেসবুক অফিসিয়াল পেজে এ কথা তারা জানিয়ে দেন । 

ফেসবুকে মাইলসের প্রতিক্রিয়া দেখতে ক্লিক করুন এখানে।